আসছে নব্বইয়ের দশকের বিখ্যাত ছবি ‘সাজান’ এর সিক্যুয়েল

|গসিপ ডেস্ক|

“সাজান” ছবিটি হয়তো অনেকেই দেখেছেন। এই ছবিটি নব্বই দশকের হিন্দী চলচ্চিত্রের জগতে এক অনবদ্য নাম। যেমন এ ছবির কাহিনী, তেমনি ছিলো এর সঙ্গীত। এই ছবির বিখ্যাত গান, দেখা হে পেহেলি বার সাজান কে আখো মে পেয়ার কিংবা তু শায়ের হে মে তেরি শায়েরি নিশ্চই সবার মনে এখনো গুনগুনিয়ে ওঠে। শোনা যাচ্ছে, তরুণ প্রজন্মের তারকাদের নিয়ে নির্মিত হবে এর সিক্যুয়েল “সাজান-২”।
এর পরিচালক লরেন্স ডি’সুজাও সম্পূর্ণ প্রস্তুত ১৯৯১ এর সুপারহিট ছবি ‘সাজান’ এর সিক্যুয়েল নির্মানের জন্য।

‘সাজান’ এর মূল ছবিতে অভিনয় করেছিলেন সঞ্জয় দত্ত, মাধুরী দীক্ষিত, এবং সালমান খান।

তিনি একটি ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, “চিত্রনাট্য প্রস্তুত হয়ে গেছে। ছবির মূলভাবও একই থাকবে- ত্রিভুজ প্রেম, দুই নায়ক, এক নায়িকা। আমরা বড় মাপের তারকা আশা করছি এই ছবির জন্য। আমরা স্বনামধন্য তরুণ অভিনেতাদের মধ্যে কাওকে বেছে নেবো। কয়েকজনের নামও আমার মাথায় আছে।”পরিচালক লরেন্স এখনো খোলাশা করেননি কারা দখল করতে যাচ্ছে আগের অভিনেতাদের স্থান।

‘৯১ এ মুক্তিপ্রাপ্ত ‘সাজান’ ছবিতে সঞ্জয় দত্ত একজন অনাথের ভূমিকায় অভিনয় করেন, যার শৈশবে বন্ধুত্ব হয় ধনী পরিবারের সন্তান সালমান খানের সাথে। বড় হয়ে সঞ্জয় জনপ্রিয় কবি হয়, এবং মাধুরী থাকে তাঁর ভক্ত। তবে মাধুরী কখনো তাঁকে দেখেনি। এরই মাঝে প্রবেশ করে সালমান খান। শুরু হয় ত্রিভুজ প্রেম, বন্ধুত্ব, ভালোবাসা ও ত্যাগকে ঘিরে গড়ে ওঠা এক দারুন রোম্যান্টিক ছবি।

এ ছবির গান ‘ দেখা হে পেহেলি বার সাজান কে আখো মে পেয়ার’ ‘তুমসে মিলনে কি তামান্না হ্যায়’ ‘জিয়ে তো জিয়ে ক্যায়সে’ ‘তু শায়ের হে মে তেরি শায়েরি’ ইত্যাদি নব্বই দশকে বাংলাদেশ সহ গোটা উপমহাদেশে ভাইরাসের মতো ছড়িয়ে পড়েছিলো। গানগুলো আজও একই রকম জনপ্রিয় এর শ্রোতাদের কাছে।

জনপ্রিয় সব পুরানো ছবির সিক্যুয়েলের ভীড়ে ‘সাজান’ এর নতুন রূপ আলাদা ভাবেই জায়গা করে নেবে বলে আশা করা যাচ্ছে। ২০১৪ সালে ছবিটি মুক্তি দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করছেন এর নির্মাতা।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin