ইতিহাস গড়লেন সৌদির মেয়ে হায়ফা: প্রথম চলচ্চিত্র নির্মান

|রূপ-কেয়ার ডেস্ক|

পৃথিবীর সবচেয়ে রক্ষণশীল দেশের একটি হলো সৌদি আরব। বিনোদনের খুব কম মাধ্যমই আছে সেখানে। তার ওপর চলচ্চিত্র নির্মান সেটাতো আকাশ-কুসুম কল্পনা। তবে বিশ্বকে অবাক করে দিয়ে সেই সৌদি আরবেই ইতিহাস তৈরি করলেন হায়ফা। হায়ফা হলেন প্রথম সৌদি নারী চলচ্চিত্র পরিচালক। আর তাঁর ছবি ‘ওয়াদজা’ হল প্রথম সৌদি ছবি। আর তাই তিনিই হচ্ছেন সৌদি আরবের প্রথম এবং একমাত্র চলচ্চিত্র পরিচালক!

ওয়াদজা’র পুরো শুটিং হয়েছে সৌদিতেই। যেখানে সিনেমার শুট করা এখনো নিষিদ্ধ। যদিও আইন আস্তে আস্তে শিথিল হচ্ছে। এখন সেখানে বাছাই করে চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।
হায়ফা আল মনসুর কায়রোর আমেরিকান ইউনিভার্সিটি থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে কাজের জন্য সৌদি ফিরে আসেন। একজন নারী হিসেবে তিনি আরবে পা রেখে অনুভব করলেন তিনি যেন অদৃশ্য হয়ে পড়েছেন। তিনি নিজের অস্তিত্ব প্রমাণ করতেই চলে আসেন ফিল্ম তৈরিতে। সৌদি আরবে একজন নারীর এর চেয়ে চ্যালেঞ্জিং কাজ আর হতে পারে না।
হায়ফা জানান, এটা আমাকে বলার শক্তি দিয়েছিল। এবং কাজটা করা খুবই কঠিন ছিল। কারন আমিই প্রথম এখানে এটা করতে শুরু করি।

ছবির গল্পে দেখা যায়, ১১ বছরের এক মেয়ে শিশু সাইকেল কেনার জন্যে বাবার কাছে বায়না ধরেছে। উল্লেখ্য সৌদিতে মেয়েদের জন্যে সাইকেল চড়া অপরাধের সামিল।
ছবিটির আইএমডিবির রেটিং ৭.৭ । আর এরই মধ্যে পৃথিবীর বিভিন্নপ্রান্ত থেকে উল্লেখযোগ্য বেশ কিছু পুরস্কারও জিতে নিয়েছে ছবিটি।

সৌদি আরবের হায়ফার এই অগ্রযাত্রায় তাকে আমরা অভিনন্দন জানাই।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin