ঈদের আগেই ঘরবাড়ি পরিষ্কার করে ফেলুন

rupcare_house

ঈদের আর মাত্র কয়েকটা দিন। হাতে একেবারেই সময় নেই। এরই মাঝে সেরে ফেলুন ঘর পরিষ্কারের কাজটি। ঈদের দিনে সবার বাড়িতেই মেহমান আসে। আর তাদের সৌজন্যেই ঘরদোর পরিষ্কার রাখাটা খুবই প্রয়োজন। এছাড়া ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক ঈদের দিনটি অনেক বেশি পবিত্র। তাই এই দিনে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকাটা বাঞ্চনীয়। ঘরদোর পরিষ্কারের ক্ষেত্রে ঠিক যেসব দিকে মনোযোগটা বেশি দেয়া দরকার।

১. ছাদের ঝুল :

ঘরদোর পরিষ্কারের বেলায় সবার আগে নজরে রাখতে হবে ছাদের ঝুলগুলো ঠিকমত পরিষ্কার হয়েছে কিনা। বাড়িতে কেউ এলে সবার আগেই নজরে পড়ে এইসব ঝুলজাতীয় ময়লা। তাই ঈদের দিনে ঘর পরিষ্কার করার সময়ে এই দিকটায় বেশি মনোযোগ দিন।

২. রান্নাঘর :

এবারের ঈদটি হল ঈদুল আযহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদ। ইতিমধ্যেই নিশ্চয়ই সবার গরু আর ছাগল কেনা হয়ে গেছে। এবারের ঈদে রান্নার আইটেমও থাকে অনেক বেশি। তাই ঈদ আসার আগেই রান্নাঘরটি ঠিকভাবে পরিষ্কার আছে কি না সেদিকে খেয়াল রাখুন। রান্নাঘরে কাজের পরিবেশ আছে কিনা দেখে নিন। অপ্রয়োজনীয় নোংরা রান্নাঘরের বাহিরে স্থানান্তরিত করুন এবং ঈদের রান্নার সুস্থ পরিবেশ তৈরি করুন।

৩. কাপড় চোপড় :

অনেক বাড়িতেই অতিরিক্ত কাপড় চোপড় দিয়ে ঘর একেবারে নোংরা হয়ে থাকে। এইসব অতিরিক্ত কাপড়চো্পড় ঈদের আগেই অন্য কোথাও রাখার ব্যবস্থা করুন। ঘরদোর একেবারে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে ফেলুন। ড্রইংরুমসহ প্রতিটি রুমের বেডে নতুন বিছানার চাদর পেতে দিন এবং ঘরটিকে করে তুলুন ছিমছাম।

৪. জানালার পর্দা এবং বিছানার চাদর :

প্রতিটি ঘরেই নতুন বিছানার চাদর এবং আকর্ষণীয় পর্দা লাগানোর চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে পুরাতন পর্দাই পরিষ্কার করে লাগিয়ে দিন।

৫. ড্রইংরুম :

ঈদের জন্য ঘরদোর পরিষ্কারের ক্ষেত্রে ড্রইংরুমের দিকে বেশি নজর দেয়ার চেষ্টা করুন। কেননা এই রুমেই মেহমানের আনাগোনা হবে অনেক বেশি। তাই এই রুমটিকে কি করে অনেক বেশি আকর্ষণীয় করে তোলা যায় সেদিকে ভাবুন। প্রয়োজনীয় শোপিস এবং ফুল ব্যবহার করতে পারেন আকর্ষণ বাড়াতে।

৬. ডাইনিং টেবিল :

ঈদ মানেই খাওয়া দাওয়া। আর কোরবানি ঈদে তো কোনো কথাই নাই। খাওয়া দাওয়াটি করা হয়ে থাকে ডাইনিং টেবিলে। এই টেবিলটিকে কিভাবে সুন্দরভঅবে সাজানো যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। এখানেও নানা শোপিস রাখতে পারেন। পাশাপাশি পরিষ্কারও রাখুন।

সূত্র: প্রিয় লাইফ

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin