ওয়েক্সিং : দীর্ঘ সময় অবাঞ্ছিত পশম মুক্ত থাকুন

|অনামিকা মৌ|

ওয়েক্সিং হলো শরীরের অবাঞ্ছিত পশম দূর করার একটি পদ্ধতি, যা পশমকে গোড়া থেকেই তুলে ফেলে। এই পদ্ধতিতে পশম দূর করলে অনেকদিন পর্যন্ত ত্বক পশম মুক্ত থাকে (প্রায় দুইমাস পর্যন্ত)। এটি ভ্রু, মুখমন্ডল, পিঠ, হাত-পায়ের ত্বক এবং গোপন স্থানের পশম দূর করতে কার্যকরী। ওয়েক্সিং এর সুবিধা হলো দীর্ঘ সময় পশম মুক্ত থাকা এবং অন্য পদ্ধতি অবলম্বনে ত্বকের রঙ কালো হয়ে যায়, ওয়েক্সিং এ তা হয় না। আর অসুবিধা হলো, এটি ব্যাথাদায়ক পদ্ধতি এবং পশমের আকৃতি খুব ছোটও হতে পারবে না আবার খুব বড়ও হতে পারবে না।

ওয়েক্সিং এর বিভিন্ন পদ্ধতির মধ্যে স্ট্রিপ ওয়েক্সিং সবচেয়ে জনপ্রিয়। যদিও এটি সময়সাধ্য এবং বাইরে কোথাও করাতে গেলে অনেক খরচেরও ব্যাপার। কিন্তু সতর্কতার সাথে নিম্ন পদ্ধতিতে আপনি ঘরে বসেই এটি করতে পারেন।

যা লাগবে


• ১ কাপ (২৫০মি.লি.) দানাদার চিনি
• ১ কাপ (২৫০মি.লি.) মধু
• আধা কাপ (১৫০মি.লি.) লেবুর রস

যেভাবে করবেন

চিনির সিরা তৈরী করুন


একটি পাত্রে (সসপ্যান) পুরোটা চিনি যোগ করুন। এটি মাঝারি তাপে গরম করতে থাকুন। একটু পর পর কাপড় দিয়ে পাত্রটি ধরে নাড়তে হবে যতক্ষণ না চিনির সিরা তৈরী হবে। যখন চিনির সিরা তৈরী হয়ে যাবে তখন খুব সুন্দর ঘ্রান বের হবে।

লেবুর রস এবং মধু যোগ করুন
চিনির সিরা হয়ে এলে এর মধ্যে মধু এবং লেবুর রস যোগ করুন। লেবুর রস যোগ করার সময় গরম ফেনা তৈরী হবে, এক্ষেত্রে সাবধান থাকতে হবে। একটি কাঠের চামচ দিয়ে মিশ্রণটি নাড়তে থাকুন। মিশ্রণটি ঘন আঠালো হয়ে যাওয়া পর্যন্ত নাড়তে হবে। যদি বেশি ঘন হয়ে যায়, এক চা চামচ পানি যোগ করুন।

মিশ্রণটিকে ঠান্ডা করুন


চুলা থেকে মিশ্রণটিকে নামিয়ে ঠান্ডা করুন এবং রেফ্রিজারেটরে রাখুন।

আপনার পশমের আকার দেখে নিন


আপনি যেই স্থানের পশম দূর করবেন, সেখানে পশমের দৈর্ঘ্য কমপক্ষে ০.১৫ থেকে ০.২৫ ইঞ্চি হতে হবে।
যদি আপনার পশম খুব ছোট হয়, তাহলে ওয়েক্সিং করে এটি গোড়া থেকে তোলা যাবেনা।
যদি আপনার পশম খুব বড় হয়, তাহলে আপনি প্রচন্ড ব্যাথা অনুভব করতে পারেন।

ওয়েক্সিং এর জন্য কাপড়


লম্বা করে সুবিধাজনক দৈর্ঘ্যের সুতি বা লিলেন এর কাপড় টুকরো করে কেটে নিন। কাপড়ের টুকরোর চারিধার একটু সেলাই করে নিলে ভালো হয়।

পশম তোলার স্থানে পাউডার দিয়ে শুষ্ক করে নিন


পশম তোলার স্থানটি একটু বেবি পাউডার দিয়ে শুষ্ক করে নিন, এতে ওয়েক্সিং করার সময় আপনার ত্বকে ব্যাথা কম অনুভূত হবে।

অত:পর ওয়েক্সিং এর মিশ্রণটি যোগ করুন


একটি চামচ দিয়ে ওয়েক্সিং এর মিশ্রণটি পশমযুক্ত ত্বকে প্রয়োগ করুন। পশমের গোড়া থেকে উপরের দিকে টেনে টেনে মিশ্রণযোগ করতে হবে।

কাপড়ের টুকরো ত্বকের উপর রাখুন


ওয়েক্সিং মিশ্রণের উপর কাপড়ের টুকরো ভালভাবে চেপে রাখুন। এখন আপনাকে মিশ্রণটি শুকিয়ে পশমের সাথে আঠালো ভাবে লেগে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

কাপড়টি তুলে ফেলুন


পশমের সাথে কাপড়টি ভালভাবে লেগে গেলে, কাপড়ের একপ্রান্ত ধরে ৯০˚ কোণে দ্রুত টেনে তুলুন। এভাবে আরেকটি কাপড়ের টুকরো ও ওয়েক্সিং মিশ্রণ দিয়ে অন্য স্থানের পশম তুলতে হবে।

পশম তোলা স্থানের যত্ন নিন


পশম তোলার পর ঐ স্থানের ত্বকটি লাল হয়ে জ্বালাপোড়া করতে পারে। সেজন্য ঐ স্থানে বরফ ঘষুন। একটু আফটার সেভ লোশন বা কুলিং ক্রিম অথবা সেভলন দিলেও উপকার পাবেন।

যেটুকু ওয়েক্সিং মিশ্রণ অবশিষ্ট রয়ে যাবে তা রেফ্রিজারে কয়েক সপ্তাহ এবং ডিপ ফ্রিজারে কয়েক মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়। ব্যবহারের আগে গরম করে মিশ্রণটি আঠালো করে নিলেই হবে।
মনে রাখবেন ওয়েক্সিং একটি ব্যাথাদায়ক পদ্ধতি। যতো নিখুত ও সতর্কভাবে এটি করবেন ব্যাথা ততো কম অনুভূত হবে।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin