দই ইলিশে পরিপূর্ণ তৃপ্তি

|সাহাদাত উদরাজী|

rupcare_doi ilish3

রান্না কি আসলে সহজ কাজ! আমি বলি ‘হ্যাঁ’! তবে এই ‘হ্যাঁ’ তে কিছু কথা আছে! এই হ্যাঁ’তে আপনার থাকতে হবে রান্নার প্রতি ‘ভালবাসা’ এবং ‘ধৈর্য’। আপনি যদি রান্নাকে ভালবাসেন এবং রান্নার প্রতি ধৈর্য থাকে তবেই রান্না আপনার কাছে ‘সহজ’ ব্যাপার হয়ে ধরা দিবে। রান্নায় প্রথম জটিলতা হচ্ছে আপনি কি রান্না করবেন তা মনস্থির করা, মনস্থিরের পর আপনি রান্নার উপকরন গুলো হাতের কাছে যোগাড় করে নেবেন। রেসিপি যোগাড় করে বুঝে নেয়াও কাজের একটা ধাপ। রেসিপি দেখে রান্না করলে আপনি তা আগেই প্রিন্ট করে নেবেন কিংবা বই বা পেপার হলে তা নিয়ে দেখে নেবেন, সময়ে বা রান্না শুরু হলে যেন সমস্যা হলে দেখতে পারেন সে ব্যবস্থা করতে হবে।

রান্নায় আপনার ভালবাসা এবং ধৈর্য থাকলে এক সময় রান্নাই আপনাকে ভালবেসে ফেলবে, রান্না যেহেতু অভিজ্ঞতার ব্যাপার, এই অভিজ্ঞতার কারনেই আপনি ইশারাতেই রান্নার গোপন কথা বুঝতে পারবেন। তার পর আপনার যা ইচ্ছা, নাড়া ছাড়া করলেই রান্না আপনার মনের মত হয়ে যাবে! হা হা হা…

চলুন আজ আর একটা ইলিশের রান্না দেখে ফেলি। খুব সহজ এবং সাধারন। ইলিশের ঘ্রান ঠিক রেখেই এই রান্না। ইলিশ মাছ এমন এক স্বাদের মাছ যে, মাঝে মাঝে মনে হয় কাঁচাও খাওয়া যেতে পারে। ইলিশ যেভাবেই রান্না হউক না কেন, খেতে মজাই মজা।

উপকরন ও পরিমানঃ
– ইলিশ মাছের ৫ টুকরা
– আদা বাটা (হাফ চা চামচ)
– দুইটা মাঝারি পেঁয়াজ কুঁচি
– কয়েকটা কাঁচা মরিচ
– হাফ চামচ হলুদ গুড়া
– হাফ চামচ বা তার কম লাল মরিচ গুড়া, ঝাল বুঝে
– টক দই এক কাপের কম
– এক চিমটে গোল মরিচের গুড়া
– চিনি (হাফ চামচের কম)
* (টক দইয়ের সাথে গোল মরিচের গুড়া এবং চিনি মিশিয়ে নেবেন)
– লবন, পরিমান মত, শুরুতে কম দিয়েই রান্না শুরু করা উচিত, লাগলে পরে দিতে পারবেন।
– পানি, পরিমান মত
– তেল, পরিমান মত, আমি কম তেলে রান্না করতে পছন্দ করি।

প্রনালীঃ
১. কড়াইতে তেল গরম করে সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ কুঁচি ও কাঁচা মরিচ ভাঁজুন। পেঁয়াজ হলদে হয়ে গেলে আদা বাটা দিয়ে দিন এবং আরো সামান্য সময় ভেঁজে পানি দিয়ে দিন।

২. এবার হলুদ ও মরিচ দিয়ে দিন, এমন ঝোল হয়ে যাবে। আগুনের আঁচ কম রাখুন। তেল উঠে আসবে।

৩. এবার ইলিশ মাছের টুকরা গুলো দিয়ে দিন, হালকা আঁচে মাছের এপিট ওপিট করে দিন। মিনিট ৭/৮ এর জন্য ঢাকনা দিয়ে রাখতে পারেন। মাছের পানি বের হয়ে যাবে।

rupcare_doi ilish2

৪. এবার টক দই (যাতে চিনি ও গোল মরিচের গুড়া ছিল) দিয়ে দিন। মাঝারি আঁচে আগুন চলবে, এবং আরো হাফ কাপ পানি দিন। এবার ঢাকনা দিয়ে দিন। মাঝারি আঁচে আগুন জ্বলবে।

rupcare_doi ilish1

৫. দ্রুত ঝোল কমিয়ে ফেলতে আগুনের আঁচ বাড়িয়ে দিতে পারেন। তবে কেমন ঝোল রাখবেন তা আপনি নিজে নির্ধারন করুন। সামান্য ঝোল না হলে, চলে কি করে! তবে এবার ফাইন্যাল লবন দেখে ফেলুন। লাগলে দিন, না লাগলে ‘ওকে’ বলুন।

৬. ব্যস হয়ে গেল দই দিয়ে ইলিশ রান্না, দই ইলিশ।

জাষ্ট, অসাধারণ*। খেয়ে আপনাকে বলতেই হবে, ‘মানুষের রাজা পুলিশ, মাছের রাজা ইলিশ’!

না, মানুষের রাজা পুলিশ নয় কিছুতেই! বিশেষ করে আমাদের দেশের পুলিশতো নয়ই!

রেসিপি প্রিয় পাঠক/পাঠিকা ভাইবোনদের শুভেচ্ছা। আপনাদের যদি কোন কাজে লাগি তবেই আমাদের এই প্রচেষ্টা সার্থক। একবার রান্না করেই দেখুন না!

* ইলিশ কেনার সময় পদ্মার ইলিশ দেখে কিনবেন। পদ্মার ইলিশে একটা আলাদা ঘ্রান আছে, যা ভুলে যাবার নয়।

এই রেসিপিটি সম্বন্ধে আরো জানতে ভিজিট করুন

http://udrajirannaghor.wordpress.com/

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin