প্রজননতন্ত্রের সুরক্ষায় হিপ বাথ

:রূপ-কেয়ার ডেস্ক:
হিপ বাথ বা সিটজ্ বাথ বলতে বিশেষ ধরণের পানিতে কোমড় hip bathপর্যন্ত ডুবিয়ে রেখে বাথ বা গোসল নেয়া বুঝায়। সাধারণত আমরা যে বাথ নিয়ে থাকি আপাতদৃষ্টিতে তা শরীর পরিষ্কার করলেও পুরোপুরি জীবাণুমুক্ত হয়না। সাধারণ বাথের ফলে প্রজনন অঙ্গ এবং এর আশে-পাশের বেশিরভাগ জায়গারই জীবাণুগুলো রয়ে যায়। বিশেষ করে মেয়েরা এইসব জীবাণুদ্বারা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকে বেশি। ফলে প্রজননতন্ত্র ও মুত্রতন্ত্রে বাসা বাধে নানা রোগবালাই। এগুলোর মধ্যে ইউরিনারী ইনফেকশন, ওভারিয়ান সিস্ট, ডিসমেনোরিয়া, পেলভিক প্রদাহ, নানারকম সেক্সুয়াল ট্রান্সমিটেড ডিজিজ এমনকি ওভারিয়ান ক্যান্সারও।

আমাদের দেশে বাথ বলতে শাওয়ার করা অথবা গায়ে পানিঢেলে গোসল করাকেই বুঝি, এখানে বাথটাবের ব্যবহার খুবই কম। ফলে বেশির ভাগ নারীই এসব জটিলতায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। কিন্তু সপ্তাহে অন্তত একবার হিপবাথ বা সিটজ্ বাথ নিয়ে আমরা থাকতে পারি এইসব জটিলতা থেকে প্রায় ৭০ভাগ নিশ্চিন্ত। আসুন কিভাবে হিপবাথ নিতে হবে যেনে নিই।

হিপ বাথ নেয়ার নিয়ম:
Hanshinyokuযাদের বাসায় বাথটাব আছে তারা এটি ব্যবহার করতে পারেন আর যাদের বাথটাব নেই তারা বড় গামলা বা বালতি ব্যবহার করুন (যেন তাতে কোমড় পর্যন্ত ডুবিয়ে বসে থাকা যায়)। বাথটাব বা গামলায় হালকা গরম পানি (সহ্য করার মতো) দিয়ে প্রায় ১ ফুট বা কোমড় ডোবাতে যতটুকু লাগে ততটুকু পুরণ করুন। এবার পানিতে ১% আয়োডিন দ্রবণ (যা নিকটস্থ ফার্মেসির দোকানে পভিসেপ বা অন্যান্য নামে পাবেন) ১০ ফোঁটা ঢেলে গুলিয়ে নিন। আয়োডিন না পেলে স্যাভলন বা ডেটলও ব্যবহার করতে পারেন। মিশ্রণ করা শেষ হলে তাতে হাঁটু ভাজ করে বা যেভাবে সুবিধা বসে থাকুন (যেন নাভি পর্যন্ত ডুবে থাকে)। এভাবে প্রায় ১০-১৫ মিনিট বসে থাকুন। এরপর উঠে গিয়ে পানিটি ফেলে দিয়ে স্বাভাবিক নিয়মে গোসল সম্পন্ন করুন।

*যারা প্রজনন তন্ত্রের কোন জটিলতায় ভুগছেন, তাদের ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে হিপ বাথ নিতে হবে।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin