প্রাকৃতিক ভিটামিনে স্বাস্থ্যজ্জ্বল চুল

|আরফিন আলী তন্বী|

সুন্দর চুলের জন্য আমরা কতো কিছুই না করি। তবে আমরা মনে হয় চুলের বাহ্যিক যত্নের দিকেই বেশি নজর দিই। কিন্তু প্রকৃত অর্থে সুস্থ্য সুন্দর ঝলমলে চুল পেতে হলে ভেতর থেকেও এর সমান যত্ন প্রয়োজন। এমন কিছু ভিটামিন আছে যা আমাদের চুলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এগুলো আমরা পেতে পারি প্রাকৃতিক ভাবেই। আসুন জেনে নিই সেসব ভিটামিন এবং তাদের প্রাকৃতিক উৎসের কথা।

 

ভিটামিন এ:


ভিটামিন এ –এর অভাবে চুল রুক্ষ ও প্রাণহীন হয়ে যায়। ভিটামিন এ গুরুত্বপূর্ণ এন্টিঅক্সিডেন্ট বিধায় এটি চুলের গোড়াকে আর্দ্র এবং সতেজ রেখে চুলকে করে শক্ত ও মজবুত। খাদ্য তালিকায় দুধ, গাজর, মূলা, সবুজ শাক-সবজি থাকলে ভিটামিন এ –এর চাহিদা পূরণ হয়।

ভিটামিন সি:


ভিটামিন সি এর অভাবে চুল খসখসে ও শুষ্ক হয়ে ওঠে। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় লেবু জাতীয় ফল, কমলালেবু, মাল্টা, জাম্বুরা ইত্যাদি থাকলে ভিটামিন সি এর অভাব আর হবেনা।

ভিটামিন বি কমপ্লেক্স:


ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের মধ্যে বি৬, বি১২ এবং বায়োটিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চুল পরা, পাকা চুল এর বিরুদ্ধে কাজ করে আপনার চুলকে ঘন কালো উজ্জ্বল এবং লম্বা করে তুলতে এই তিনটি ভিটামিন এর জুড়ি নেই। এগুলো পেতে হলে আপনাকে প্রতিদিন শস্যদানা, দুধ, ডিম, কলা, বাদাম, কলিজা এবং ডাল খেতে হবে।

ভিটামিন ই:


চুল এবং ত্বকের যত্নে বরাবরই উঠে আসে ভিটামিন ই এর কথা। ভিটামিন ই হলো শক্তিশালী একটি এন্টিঅক্সিডেন্ট, যা চুলের জন্য ক্ষতিকারক ফ্রি রেডিক্যালস্‌ এর বিরুদ্ধে কাজ করে। এই ভিটামিন আপনার মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে, যার ফলে:
চুল সফ্‌ট হবে এবং চুলের আগা ফেটে যাওয়া রোধ হবে।
আপনি দৈনন্দিন কাঠ বাদাম (আলমন্ড), টমেটো, পালং শাক, জলপাই এবং এর তেল, মরিচ ইত্যাদি খেতে পারেন এই চাহিদা পূরণে।

ফলিক এসিড:


যদিও ফলিক এসিড ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের অন্তর্গত, তবুও এটি আলাদা ভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ মস্তিষ্কের বিকাশ এবং শারীরিক নানা কর্মকান্ডে এর গুরুত্ব অপরিসীম। স্বাস্থ্যজ্জ্বল চুলের জন্যও ফলিক এসিড দরকারী। চুল ঘন কালো ঝলমলে করতে এবং সাদা চুল ও চুলের ভেঙ্গে যাওয়া রোধ করতে ফলিক এসিড অনন্য। সরিষা, পালং শাক, ব্রুকলি, আঙুর, পেয়ারা, মটরশুটি, বাধাকপি ইত্যাদি খেলে ফলিক এসিডের চাহিদা পূরণ হবে।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedin