শামুক দিয়ে রূপচর্চা! : জাপানিজ আবিষ্কার

|রূপ-কেয়ার ডেস্ক|

rupcare_Celeb Escargot1

সেলিব্রিটি এস্কারগট কোর্স নামটা বিদঘুটে হলেও এটি একটি রূপচর্চার থেরাপির নাম। আর থেরাপিটি করা হয় তাও আবার জীবন্ত শামুক দিয়ে! পদ্ধতিটাও বেশ অদ্ভুত! মুখের ওপর জীবন্ত শামুক ছেড়ে, এক ঘণ্টার পরিপূর্ণ বিশ্রাম! এতে ত্বক হবে সতেজ। জাপানের টোকিও ক্লিনিক্যাল সালন নামের একটি রূপচর্চা কেন্দ্রে ফেসিয়াল হিসেবে এক ঘণ্টার এ শামুক থেরাপি দেওয়া হচ্ছে। খবর-টেলিগ্রাফ।

মুখমণ্ডল ম্যাসাজ, মাস্কস লাগানো, ইলেকট্রিক পালস দেওয়া, তারপর শামুক থেরাপিসহ পুরো প্রক্রিয়াটিতে খরচ পড়বে ১৬১ পাউন্ড। এ পদ্ধতিতে ফেসিয়ালের সময় মুখের ওপর জীবন্ত শামুক ছেড়ে দেওয়া হয়। এটি সারা মুখে ঘুরে বেড়ায়। শামুক থেকে নির্গত বিশেষ আঠালো উপাদানই মুখের ত্বকের কোষগুলোকে প্রাণবন্ত করে তোলে। শামুক থেকে নির্গত বিশেষ আঠালো পদার্থে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধির উপাদান হিসেবে রয়েছে প্রোটিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও হায়ালিউরনিক অ্যাসিডের মিশ্রণ। এ রাসায়নিক উপাদানগুলো ত্বকের আর্দ্রতা বাড়ায়, প্রদাহ কমায় ও মৃত কোষগুলো সরিয়ে ফেলে।

ক্লিনিক্যাল সালনের বিক্রয় ব্যবস্থাপক ইয়োকো মিনামি দাবি করেছেন এটাই বিশ্বের প্রথম শামুক থেরাপি। রাজধানী টোকিওতে অবস্থিত এ সালনটিতে বর্তমানে পাঁচটি শামুক ফেসিয়াল করাতে ব্যবহূত হচ্ছে। স্বচ্ছ কাচের পাত্রে রাখা শামুকগুলোর খাবার হচ্ছে শাকসবজি ।

রূপচর্চায় শামুক থেরাপি অবশ্য নতুন কিছু নয়। দুই হাজার বছর আগেও শামুক দিয়ে রূপচর্চা ও চিকিত্সায় শামুক ব্যবহারের প্রমাণ মেলে। ত্বকের প্রদাহ দূর করতে টক দুধের সঙ্গে শামুক নির্গত রস মিলিয়ে তৈরি উপাদান ব্যবহারের ইতিহাস দীর্ঘদিনের। উল্লেখ্য, সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির প্রভাবে ত্বকের যে ক্ষতি হয়, শামুক থেরাপিতে সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব।