শীতে চুলের সমস্যা সমাধানে বিশেষজ্ঞের কিছু টিপস্‌

rupcare_winter hair care tips

শীতের শুষ্ক আবহাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় চুল ও মাথার ত্বক। তাই সমস্যা এড়াতে প্রয়োজন সঠিক পরিচর্যা।

চুলের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান নিয়ে পরামর্শ দেন মিউনিস ব্রাইডাল বিউটি পার্লারের কর্ণধার তানজিমা শারমিন মিউনি।

শীতে খুশকি, চুল রুক্ষ হয়ে যাওয়, চুল পড়া ইত্যাদি সমস্যাগুলোর প্রকোপ বেড়ে যায়।

মিউনি বলেন, “যাদের চুল তৈলাক্ত তাদের চুল এই সময় নির্জীব দেখায়। তাই শ্যাম্পুর সঙ্গে খানিকটা বেইকিং সোডা মিশিয়ে শ্যাম্পু করলে চুল দেখতে ফুরফুরে লাগবে।”

তাছাড়া এ সময় চুল অনেকটা শুষ্ক হয়ে যায়। তাই নিয়ম করে তেল দেওয়া উচিত এবং অবশ্যই শ্যাম্পু করার পর চুলে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে।

মিউনি বলেন, “সপ্তাহে দুবার রাতে চুলের গোড়ায় অলিভ অয়েল বা ক্যাস্টর অয়েল লাগাতে হবে। সকালে করতে হবে শ্যাম্পু। এতে চুলের আর্দ্রতা বজায় থাকবে। চুলে প্রোটিন সমৃদ্ধ কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। তাহলে চুলের পুষ্টি বজায় থাকবে। শুষ্ক চুলের জন্য ভিটামিন ই, অ্যালোভেরা সমৃদ্ধ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে।”

এছাড়াও চুলের বেশ কিছু সমস্যা দেখা দেয় এই মৌসুমে। এমনই কিছু সাধারণ সমস্যা ও তার সমাধান এই প্রতিবেদনে তুলে ধরা হল।

খুশকি:

শীতে আমাদের ত্বক আর্দ্রতা হারিয়ে শুষ্ক হয়ে যায়। তেমনি মাথার ত্বকেরও আর্দ্রতা কমে যাওয়ায় ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় আর এতে মাথার ত্বকে মৃত কোষের পরিমাণও বৃদ্ধি পায়। তাছাড়া এ সময় ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় খুশকি সমস্যাও বৃদ্ধি পায়।

সমাধান: খুশকি সমস্যা বেড়ে গেলে অ্যান্টি-ড্যান্ড্রাফ শ্যাম্পু দিয়ে সপ্তাহে অন্তত একবার চুল পরিষ্কার করতে হবে। গোসল করার আগে মাথার ত্বকে লেবু ঘষে নিতে হবে। এরপর শ্যাম্পু করে নিলে খুশকি থেকে রেহাই পাওয়া যাবে।

চুল পড়া:

শীতে মাথার ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে চুল পড়ার মাত্রা বেড়ে যায়। সাধারণত প্রতিদিন একশটির মতো চুল পড়া স্বাভাবিক। তবে শীতে এর পরিমাণ বেড়ে যায়।

সমাধান: এই মৌসুমে ঘন ঘন চুল আঁচরানোর অভ্যাস পরিহার করুণ। আর উচ্চ তাপে ব্লো ড্রাই করাও উচিত নয় এতে চুলের গোড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বাদাম তেল কুসুম গরম করে তা চুলের গোড়ায় হালকা হাতে মালিশ করতে হবে। একটি গরম তোয়ালে দিয়ে পুরো চুল পেঁচিয়ে রাখতে হবে। ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে।

উশকোখুশকো চুল:

শীতে শুধু মাথার ত্বকই ক্ষতিগ্রস্ত হয় না, আর্দ্রতা হারায় চুলও। তাই চুল অনেকটাই প্রাণহীন হয়ে যায়। তাছাঢ়া চুলের আগা ফাটা এবং চুল ভেঙে পড়ার সমস্যাও দেখা দেয়। তাই প্রয়োজন বাড়তি যত্ন।

সমাধান: প্রথমেই ক্ষতিগ্রস্ত চুলের আগা ফাটা হলে তা কেটে ফেলতে হবে। এক্ষেত্রে শীতের সময় নতুন করে হেয়ার কাট নিয়ে নিন। নিয়মিত শ্যাম্পু করা এবং এর আগে তেল ব্যবহারে চুলে আর্দ্রতার পরিমাণ ঠিক থাকবে। অতিরিক্ত ঠাণ্ডায় মাথা ও চুল স্কার্ফ দিয়ে পেঁচিয়ে রাখতে হবে।