শীতে ত্বকের শুষ্কতা দূর করে কোমল রাখুন বিশেষ এই খাবারগুলোর মাধ্যমে

rupcare_soft skin in winter

শীতের দিনে নারী-পুরুষ ভেদে সবাইকেই বেশ ঝামেলায় ফেলে দেয় শুষ্ক ত্বক। সমাধানটা সহজ। একটু তেল, লোশন বা ক্রিম। এই তো? কিন্তু কতক্ষণ আর শরীরে লাগানো যায় রাসায়নিক এসব দ্রব্যকে? কারো অ্যালার্জি, কারো শরীরে হওয়া চিটচিটেভাব- এরকম কতশত দুর্ভোগ যে রয়েছে এগুলোর সেটা কেবল এর ব্যবহারকারীরাই বোঝেন। আর তাই এসব রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো প্রসাধনী আর সেগুলোর ঝামেলাকে দূরে রাখতে জেনে নিন এসব ছাড়াই কি করে ডায়েটে খানিকটা পরিবর্তন এনে এই শীতে আপনি আপনার ত্বককে করে তুলতে পারেন আরো চকচকে আর সতেজ।

১. স্বাস্থ্যসম্মত স্নেহপদার্থ

শরীর ও ত্বককে শুষ্কতার হাত থেকে মুক্ত করতে হলে যে জিনিসটি সবসময়েই আপনার কজে আসবে সেটি হচ্ছে স্বাস্থ্যকর স্নেহপদার্থ। আর তাই এই শীতে অন্যান্য খাবারের সাথে সাথে তালিকায় রাখুন স্নেহপদার্থে পূর্ণ খাবারগুলো ( মাইন্ডবডিগ্রিন )। এই যেমন- এ্যাভোকাডো, বাদাম কিংবা জলপাই তেল। এগুলো আপনার ত্বকের শুষ্কতাকে খুব সহজেই দূর করে দেবে।

২. নারকেল ও নারকেল তেল

নারকেল শরীরের জন্যে প্রচন্ড স্বাস্থ্যকর একটি খাবার। আর সেই সাথে নারকেল তেলও। ত্বকের ওপর মাখা ছাড়াও নারকেল খেতে পারেন আপনি খাবার হিসেবেও। এটি আপনার শরীরের শুষ্ক ত্বককে নিরাময় করতে সাহায্য করবে। সেই সাথে বাড়তি মেদকে ঝড়িয়ে ফেলে কমাতে সাহায্য করবে ওজনও ( মাইন্ডবডিগ্রিন )!

৩. পনির

সাধারণত নানা খাবারে আমরা পনির ব্যবহার করে থাকি। তবে এই শীতে পনিরটাকে একটু বেশি পরিমাণে খাওয়ার চেষ্টা করুন। কারণ পনির সেই খাবার যেটি কেবল আপনার ত্বকের শুষ্কতাই নয়, রোধ করবে মাথার খুশকিও ( ফোর্বস )! এর ভেতরে থাকা সেলেনিয়াম ও অন্যান্য খনিজ পদার্থ খুব দ্রুত এক্ষেত্রে সাহায্য করবে আপনাকে।

৪. হলুদ খাবার

হলুদ রঙ এর খাবার, যেমন- কমলা বা হলুদ রঙএর শাক-সব্জীতে প্রচুর পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন থাকে ( এওএল )। আর এই বিটা ক্যারোটিন ত্বককে সুস্থ ও সতেজ থাকতে সাহায্য করে। সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির হাত থেকে ত্বককে নিরাপত্তা দিয়ে দূর করে ত্বকের শুষ্কতা। এছাড়াও এই খাবারগুলোতে থাকে প্রচুর ভিটামিন সি ও এ। যেগুলো শরীরের কোষ সৃষ্টিকে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

৫. পানি

পানির কথাটা এ ক্ষেত্রে না বললেই নয়। পানি হচ্ছে শরীরের জন্যে একমাত্র ও অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। শীত কিংবা গ্রীষ্ম- যে কালই হোক না কেন, সবসময়েই আমাদের শরীরের সুস্থতার জন্যে যথেষ্ট পানি পান করা উচিত। আর শীতকালে তো সেটা আরো বাড়িয়ে দেওয়া উচিত। করণ এসময়ই মানুষের ত্বক শুষ্ক হয়ে পড়ে পানির অভাবে ও নানা কারণে। আর তাই বাকি সব খাবারের আগে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন ( এওএল )।