তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যায় দারুণ উপকারী ৭টি খাবার


সুন্দর ও মসৃণ ত্বক চান সবাই, কিন্তু সুন্দর ত্বক বজায় রাখতে দরকার হয় অনেকটা মনোযোগ ও যত্ন। নিয়মিত ত্বক পরিষ্কার করা এবং ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করাটা এক্ষেত্রে জরুরী। তবে ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ারও গুরুত্ব অনেক। বিশেষ করে ত্বকের তৈলাক্তভাব কমাতে কিছু খাবার খুবই কাজে আসতে পারে।

আমাদের ত্বকের তৈলাক্ততা তখনই বেড়ে যায় যখন ত্বকের সিবাম গ্রন্থিগুলো অতিরিক্ত সিবাম নিঃসরণ করে। অতিরিক্ত সিবামের কারণে ব্ল্যাকহেডস, বড় রোমকূপ এবং হোয়াইটহেডসের সমস্যা দেখা দেয়। প্রসাধনী ব্যবহার করেও সবসময় এসব সমস্যা দূর করা যায় না। তবে খাদ্যভ্যাসে কিছু পরিবর্তন আনলে ত্বকের তৈলাক্তভাব কমতে পারে। দেখে নিতে পারেন তৈলাক্ত ত্বকের জন্য উপকারি ৭টি খাবার-

১) হোল গ্রেইন

হোল গ্রেইন হলো লাল চাল, বার্লি, ভুট্টা এবং ওটসের মত খাবারগুলো। এসব খাবারে থাকে প্রচুর ফাইবার, ফলে হজম সহজ হয়। এতে ত্বকের তেলতেলে ভাবটাও কমে।

২) ডাবের পানি

ত্বককে তেলমুক্ত রাখতে তাকে আর্দ্র রাখা জরুরী। এক্ষেত্রে সাহায্য করে ডাবের পানি। এই পানিতে ভিটামিন সিয়ের পরিমাণও বেশি, ফলে তা ত্বকে ব্রণের উপদ্রব রোধ করে এবং ত্বকের রঙ রাখে উজ্জ্বল।

৩) কলা

ভিটামিন ডি এবং পটাসিয়ামের খুব ভালো উৎস কলা। এছাড়া ডিটক্সিফায়ার হিসেবেও তা উপকারী। ত্বকের রোমকূপ ছোট করে ব্রণ রোধ করতে কাজে আসে কলা।

৪) লেবু

লেবুতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস। এতে ত্বক থেকে তেল দূর হয়, ত্বক থাকে মসৃণ।

৫) ডার্ক চকলেট

সাধারণ মিল্ক চকলেট নয়, ডার্ক চকলেটে খেতে হবে ত্বকের যত্নে। এতে রয়েছে ফ্ল্যাভোনল ধরণের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা কিনা ত্বককে সুস্থ রাখে এবং সিবাম উৎপাদন নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে তেলতেলেভাব কমায়।

৬) ব্রকোলি

ভিটামিন এ এবং সি পাওয়া যায় ব্রকোলি খেলে। সবজিটি ত্বকে তেলের উৎপাদন কমায়, ত্বককে রাখে সুস্থ।

৭) ফ্ল্যাক্স সিড

এ বীজটিতে আছে প্রচুর ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড। তা খাওয়ার ফলে ত্বকে তেলের উৎপাদন কমতে পারে।

সুত্র: এনডিটিভি